এমভিপি (MVP) কি ও কেনো দরকার?

আমার কাছে অনেকে প্রশ্ন করে থাকে, MVP কি? এটি দিয়ে কি করা যায়? এটি জেনে কি লাভ? আমি এটি কিভাবে কাজে লাগাবো? এরকম অনেক প্রশ্ন! তাই ভাবলাম সবগুলো প্রশ্নের উত্তর একসাথে এই ব্লগে দিয়ে দেওয়া যাক।

MVP এর উপর ভালো ধারণা দিতে এবং এটি কিভাবে কাজে লাগানো যায় তা জানাতে এই আর্টিকেলটি লিখতে বসলাম।

MVP এর ইংরেজী পূর্ণরূপ হচ্ছে Minimum Viable Product যার অর্থ অনেকটা এরকম – নূন্যতম টেকসই পণ্য। আসুন আরো একটু সহজ ভাবে বলি, আমি একটি প্রডাক্ট তৈরির জন্য প্ল্যান রেডি করলাম। এখন প্রডাক্ট তৈরী করার জন্য আমার ৬ মাস সময়ের প্রয়োজন। কিন্তু আমি চাচ্ছি প্রথম মাসেই প্রডাক্টের একটি ডেমো (এটি ব্যবহার করার উপযোগী নয়) সবার সামনে তুলে ধরতে। প্রথম মাসে আমি প্রডাক্টের কিছু অংশ তৈরী করলাম এবং বেটা ভার্শনে সেটি রিলিজ করলাম এখানে এই বেটা ভার্শনটিই হচ্ছে MVP বা Minimum Viable Product।

একটি উদাহরণ দিচ্ছি, তাহলে বুঝতে আরো সহজ হবে। যেকোনো প্রডাক্টেরই প্রাথমিক অবস্থায় সেটি পরিপূর্ণ থাকেনা কিংবা থাকা সম্ভবও নয়। এই কথাটি সবরকম প্রডাক্টের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য।আপনার ব্যবহার করা পায়ের জুতো, পোশাক বা অন্যান্য ব্যবহার্য জিনিশ কালের বিবর্তনে পরিবর্তিত হয়ে আসছে। আমি বোঝাতে চাচ্ছি, যেকোনো প্রডাক্টের ক্ষেত্রে সর্বপ্রথম প্রডাক্টটি যে অবস্থায় দৃশ্যমান হয় সেটিই MVP।

ধরুন, আপনার মোবাইলে থাকা নোট টেকিং অ্যাপের কথা। প্রায় সবরকম ফোনেই নোট টেকিং অ্যাপ ডিফল্ট থাকে। অনেকে আবার শখের বসে গুগল কিপ (Google Keep), এভার নোট (Evernote), এনিডু (Any.Do) এর মতো অনেক অ্যাপ ইতিমধ্যে ব্যবহার করেছেন। আপনি কি জানেন? কয়েক বছর আগেও এই অ্যাপ দিয়ে শুধু টেক্সট লেখা ও লিষ্ট তৈরী করা যেতো! কিন্তু এখন যুক্ত করা হয়েছে অডিও, ইমেজ, ভয়েস নোট থেকে শুরু করে অনেক অত্যাধুনিক ফিচার।

খেয়াল করে দেখবেন, নোট টেকিং অ্যাপের মূল ফিচার হচ্ছে, টেক্সট লেখা বা লিষ্ট করা। কিন্তু সেখান থেকে আজ ভয়েস নোট পর্যন্ত চলে এসেছে। শুরুতে যেই অল্প পরিমাণ কাজ করা যেতো ঐ অ্যাপটি দিয়ে যা আমরা সবাই ব্যবহার করতাম।ঐ অবস্থাটিই হচ্ছে সেই অ্যাপটির জন্য MVP বা নূন্যতম কাজ করার যায় এমন প্রডাক্ট।

এখন আসি আপনার প্রডাক্টের MVP কেনো রিলিজ করা দরকার সে বিষয়ে!

MVP এর গুরুত্ব-

  • সাধারণত একজন উদ্যোক্তা তার প্রডাক্ট বা আইডিয়া নিয়ে কাজ করে থাকেন। আইডিয়া স্টেজে MVP রিলিজের মাধ্যমে সরাসরি সাধারন মানুষের কাছে পৌছানো যায়। এরফলে প্রডাক্টের পরিক্ষা করার একটা সুযোগ তৈরী হয়। প্রডাক্টির প্রাথমিক অবস্থা থেকে কোন বিষয়ে ডেভেলপ করা প্রয়োজন তা জানা যায়।
  • প্রডাক্টের প্রাথমিক অবস্থায় (MVP) রিলিজ করার আরো কিছু সুবিধা রয়েছে। যদি আপনার প্রডাক্ট নির্দিষ্ট কোনো সমস্যা সমাধান করে থাকে এবং কোনোভাবে জনপ্রিয় হয়ে উঠে তাহলে পরবর্তীতে তা প্রতিষ্ঠানের অর্থনৈতিক ব্যবস্থায় বড় একটি ভুমিকা পালন করে।
  • MVP ফ্রি হওয়ায় যেকেউ-ই প্রডাক্ট ব্যবহার করতে পারে তাই সহজেই ব্যবহারকারীদের কাছ থেকে ফিডব্যাক পাওয়া যায়। এবং এর উপর ভিত্তি করে ব্যবহারকারীর চাহিদা মত প্রডাক্ট তৈরি করা সম্ভব।
  • প্রাথমিক অবস্থায় প্রডাক্ট ডেভেলপমেন্টে অনেক বেশী ব্যয় না করাই ভালো। কারণ কিছু ফিচার আপনি অনেক টাকা খরচ করে ডেভেলপ করলেন অথচ দেখা গেলো ব্যবহারকারীদের পছন্দ হয়নি। তখন সেটি উভয় পক্ষের জন্য ঝুকির কারণ হতে পারে। তাই অল্প কিছু ফিচার দিয়ে এবং সমস্যা সমাধান করতে পারে এমন MVP রিলিজ করা যুক্তিযুক্ত।
  • MVP এর প্রথম দিকের ব্যবহারকারী যারা থাকে তারা প্রডাক্টির মানোন্নয়নে গুরুত্বপূর্ন ভুমিকা পালন করে। কারণ তারা (ব্যবহারকারী) যদি উপকৃত হয় তাহলে তারাই নিজ দায়িত্বে অন্যদের কাছে ব্যবহারে উৎসাহী করে থাকে। আর এর মাধ্যমে প্রডাক্টি MVP অবস্থাতেই অনেকের কাছে পৌছে যেতে পারে।

MVP এর কিছু অসঙ্গতি

  • প্রথম অবস্থায় যেকোনো প্রডাক্টের-ই কিছু সমস্যা থাকা স্বাভাবিক।অনেক ফিচার না থাকায় ব্যবহারকারী আশানুরূপ ফলাফল পায়না।
  • অনেক ক্ষেত্রে MVP যেই উদ্দেশ্য বানানো হয়, সেটি পূরণ না করে নতুন সমস্যা তৈরী করতে পারে।
  • MVP বিনামূল্য হওয়ায় এটি থেকে প্রাথমিক অবস্থায় কোনো আয় করা যায় না। (নির্ভর করে)
  • অনেক সময় দেখা যায়, MVP রিলিজ করার পর সেটি হটাৎ বন্ধ হয়ে যায়, সেক্ষেত্রে এর ব্যবহারকারীরা বেশ বিপদে পড়ে। কারণ MVP এর নির্দিষ্ট কোনো স্থায়িত্বকাল নেই।
  • MVP রিলিজের পর অনাকাঙ্খিত কিছু সমস্যার সম্মুখীন হওয়ার মানসিকতা থাকতে হবে।

MVP তৈরিতে লক্ষণীয় কিছু বিষয়-

  • MVP তৈরী করার আগে কম্পিটিটর রিসার্চ করে নেওয়া প্রয়োজন। এতে প্রডাক্টির বিশেষ ফিচার ও মানোন্নয়নে ফোকাস করা যায়।
  • MVP তৈরীর পর প্রতিনিয়ত এর ফিচার ডেভেলপ ও ব্যবহারকারীদের মতামত পর্যালোচনা করে তা বাস্তবায়ন করা।
  • যেহেতু প্রথম অবস্থায় প্রডাক্টের ডেভেলপ করতে হয় তাই বিনিয়োগের প্রয়োজন পড়ে। তাই এই বিষয়ে আগে থেকেই বিশেষ লক্ষ্য রাখতে হবে।

অবশেষে আমরা আর্টিকেলের একদম শেষ প্রান্তে চলে এসেছি। আপনি যদি সত্যিই আপনার প্রডাক্টের MVP নিয়ে চিন্তিত থাকেন, আশাকরছি আপনার চিন্তা কিছুটা হলেও কমাতে পেরেছি।

MVP তৈরী করার জন্য প্রয়োজন যথেষ্ঠ ধৈর্য্য, ইচ্ছা ও আগ্রহ! আমরা যদি আজকের ফেসবুক, গুগল, টুইটারের মত প্রডাক্টের দিকে তাকাই তাহলেই বুঝতে পারবো একটি MVP কে পরিপূর্ণ একটি প্রডাক্টে পরিণত করতে আমার, আপনার কি পরিশ্রম করে যেতে হবে।


4 thoughts on “এমভিপি (MVP) কি ও কেনো দরকার?”

Leave a Comment

Copy link
Powered by Social Snap